ভিশন -২১ বাস্তবায়নে ২৯টি রোডম্যাপ | টেকএলার্মবিডি।সবচেয়ে বড় বাংলা টিউটোরিয়াল এবং ব্লগ
Profile
আমি টেকনোলজি

মোট এলার্ম : 119 টি

আমি টেকনোলজি

আমার এলার্ম পাতা »

» আমার ওয়েবসাইট :

» আমার ফেসবুক :

» আমার টুইটার পাতা :


স্পন্সরড এলার্ম



ভিশন -২১ বাস্তবায়নে ২৯টি রোডম্যাপ
FavoriteLoadingপ্রিয় যুক্ত করুন
Share Button

আগামী ২০২১ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সম্পূর্ণ করা কাজ এবং আগামীদিনের করণীয় নিয়ে লিখিত বক্তব্যে ২৯টি রোডম্যাপ উপস্থাপন করেছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার তাঁর নিজ কার্যালয়ে আইটি সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ রোডম্যাপ ঘোষণা করে আরও কী কী করণীয় তা সাংবাদিকদের থেকে মতামত জানতে চান। এছাড়া প্রতি ৩ মাস পরপর আইটি সাংবাদিকদের সাথে এ মতবিনিময় সভা অব্যাহত রাখারও ঘোষণা দেন।

২৯ ক্যাটাগরির মধ্যে উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো ছিল, ই-গর্ভন্যান্স, হাইটেক পার্ক, সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং, কম্পিউটার ল্যাব, ই-টেন্ডার, ডিজিটাল স্বাক্ষর, ই-তথ্য সেবা, বাংলা গভনেট প্রকল্প, ইনফো সরকার প্রকল্প, জেলা ই-সেবা কেন্দ্র, ন্যাশনাল ডাটা সেন্টার, অনলাইন টেক্স পেমেন্ট, মোবাইল ভিত্তিক সেবা, সাইবার সিকিউরিটি ইত্যাদি। তবে লিখিত বক্তব্যের বাইরেও তিনি সম্ভাব্য নানান বিষয় নিয়ে আলোকপাত করেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের জন্য তাঁর প্রস্তাবিত এসব পরিকল্পনার সাথে উপস্থিত সাংবাদিকরা তাদের মতামত ব্যক্ত করেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার ফ্রিল্যান্সার এবং শিক্ষার্থীদের আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে উপার্জনক্ষম ও উদ্যোক্তা হিসাবে গড়ে তুলতে ব্যাংক ঋণ দেবে। এর মাধ্যমে তারা ল্যাপটপ কিনে লেখাপড়া এবং উপার্জন দুটোই করতে পারবে। শিক্ষার্থীরা শিক্ষাজীবন শেষে ঋণ শোধ করার সুযোগ পাবে। তিনি আরও জানান, ঋণের ব্যবস্থা করতে ইতিমধ্যে রুপালী ব্যাংক ও পিকেএসএফ রাজি হয়েছে। আমরা এতে আরও ব্যাংক ও দাতা সংস্থাকে সম্পৃক্ত হওয়ার আহবান জানিয়েছি।

সারাদেশে সরকারের পরিত্যক্ত ভবন ও জমিতে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপনের কথা জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত পাঁচ বছরে মোট ৩ হাজার ১৭২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৩৭২টি ভার্চুয়াল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপনেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া দেশের ৬৪টি জেলার এক লাখ গ্রামীণ নারীকে উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করার পরিকল্পনা আছে সরকারের।

মতবিনিময় সভায় বাংলাদশে কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক এসএম আশরাফ হোসনে, আইসিটি বিভাগের যুগ্ম সচিব সুশান্ত কুমার সাহা, তথ্য ও প্রযুক্তি অধদিপ্তরের মহাপরিচালক মোস্তফা কামাল উদ্দিন, বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরামের সদস্য ও বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জুনাইদ আহমেদ পলক তাঁর সমাপ্তি বক্তব্যে একটি চমক হাতে রেখে বলেন, ইন্টারনেটের দাম কমালে উন্নয়নের গতি সঞ্চার হবে। সবাইকে ইন্টারনেটের সুবিধার মধ্যে আনতে না পারলে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের ক্ষেত্রে কোন লাভ হবে না। ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশে ইন্টারনেটের দাম কমানোর দাবি আসছে। এ জন্য ইন্টারনেটের দাম কমাতে সরকার কাজ করছে। শিগগির এ বিষয়ে দেশবাসীকে সুখবর দেওয়া যাবে।

প্রসঙ্গত, ১০ ফেব্রুয়ারি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়কে একীভূত করে একটি নতুন মন্ত্রণালয় গঠন করেছে সরকার। একীভূত এই দপ্তর ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় নামে কার্যক্রম শুরু। এর আওতায় রয়েছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ নামে দুটি বিভাগ। এর আগে এই দুটি মন্ত্রণালয় আলাদা ছিল।

(1018)

Share Button
  

FavoriteLoadingপ্রিয় যুক্ত করুন

এলার্ম বিভাগঃ আইটি নিউজ

এলার্ম ট্যাগ সমূহঃ > > > >

Ads by Techalarm tAds

এলার্মেন্ট করুন

You must be Logged in to post comment.

© টেকএলার্মবিডি।সবচেয়ে বড় বাংলা টিউটোরিয়াল এবং ব্লগ | সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত

জেগে উঠো প্রযুক্তি ডাকছে হাতছানি দিয়ে!!!


Facebook Icon