নীল নদের তীরে ৯০০ বছরের প্রাচীন সমাধি, মিলেছে জাদুমন্ত্রের খোঁজ | টেকএলার্মবিডি।সবচেয়ে বড় বাংলা টিউটোরিয়াল এবং ব্লগ
Profile
তাহমিদ হাসান

মোট এলার্ম : 279 টি

তাহমিদ হাসান
দেখিতে গিয়াছি পর্বতমালা,,, দেখিতে গিয়াছি সিন্ধু,,, দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া,,, ঘর হতে শুধু দু’পা ফেলিয়া,,, একটি ধানের শীষের উপর একটি শিশির বিন্দু। !!!!!!!!! তাই টেকএলার্মবিডিতে এসেছি জানার জন্য।

আমার এলার্ম পাতা »

» আমার ওয়েবসাইট : http://www.graphicalarm.com

» আমার ফেসবুক : www.facebook.com/tahmid.hasan3

» আমার টুইটার পাতা : www.twitter.com/tahmid1993


স্পন্সরড এলার্ম



নীল নদের তীরে ৯০০ বছরের প্রাচীন সমাধি, মিলেছে জাদুমন্ত্রের খোঁজ
FavoriteLoadingপ্রিয় যুক্ত করুন
Share Button

সুদানে প্রায় ৯০০ বছরের পুরনো একটি ভূ-গর্ভস্থ অর্ধ-গোলাকার সমাধি ঘরের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এতে মেঝে থেকে ছাদ পর্যন্ত জাদুমন্ত্র লিখিত রয়েছে। এই ঘরে আরও পাওয়া গিয়েছে সাতটি মমিকৃত দেহ। আর এগুলো পাওয়া যায় পুরনো ড্যাঙ্গোলার একটি প্রাচীন মঠে, প্রাচীন ও বিশাল নীল নদের তীরে। সাতটি মমির একটি খুব সম্ভবত আর্চ বিশপ জিওর্জিওসের। প্রাচীন মাকুরিয়া রাজত্বের তিনি ছিলেন বেশ শক্তিশালী ধর্মীয় নেতা।

ঘরের দেয়ালগুলো ছিল সাদা চুন দিয়ে রঙ করা,যার উপর কালো কালিতে লেখা হয়েছিল অক্ষরগুলো। প্রত্নতত্ত্ববিদরা বলছেন, অক্ষরগুলো ছিল গ্রিক ও Sahidic Coptic (মিশরীয় ভাষার সর্বশেষ রূপ) ভাষার। এছাড়া এখানে লুক, জোহন, মার্ক ও ম্যাথু (মথি) লিখিত গসপেল বা সুসমাচার থেকে বিভিন্ন উদ্বৃতি এবং জাদুসংক্রান্ত বিভিন্ন নাম ও চিহ্নও দেয়ালের উপর লিখিত ছিল। এছাড়া মা মেরির উদ্দেশ্যে লিখিত এক খন্ড প্রার্থনালিপিও উদ্ধার করেছেন গবেষকরা। তাদের মতে এ ধরণের লেখাগুলো দেয়ালে লেখা হয়েছিল এই বিশ্বাস থেকে যে এগুলো মৃতদেহগুলোকে শয়তান বা অশুভ শক্তি থেকে রক্ষা করবে। ওয়ার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের এডাম ল্যাজটার বলেন, “সমাধি নির্মাণকারীদের বিশ্বাস ছিল এই লেখাগুলো সমাধিকে সুরক্ষা প্রদান করবে। এছাড়া মৃত্যু ও এরপর স্রষ্টার সম্মুখে উপস্থিত হওয়ার মধ্যবর্তী যে কঠিন সময় সেটাকেও সহজ করে দেবে এই পবিত্র বাণী। “ এসংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত Polish Archaeology in the Mediterranean জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

এ স্থানের খুব কাছেই পাওয়া গিয়েছে আর্চ বিশপ জিওর্জিওসের সমাধি ফলক যাতে লেখা আছে যে তিনি ১১১৩ সালে ৮২ বছর বয়সে মারা গিয়েছিলেন। সে থেকে তারা ধারণা করছেন যে, এই সমাধির মমিগুলোর মাঝে অন্তত একটি হবে কোনো ধর্মীয় নেতার। অন্য মমিগুলোর সবাই ছিল পুরুষ, যাদের বয়স ৪০ বছরের মাঝে। প্রতিটি মৃতদেহই লিনেনের কাপড় দিয়ে আবৃত ছিল। খুব সম্ভবত শেষ মৃতদেহ ঢোকানোর পর এই ঘরের প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেয়া হয়। কাদামাটি ও লাল ইট দিয়ে এই সমাধি ঘরের প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেয়া হয়।

এই সমাধি ঘরের নির্মাণকাল মাকুরিয়া রাজত্বকালে, যেটা ৭৫০-১১৫০ সালে উন্নতির শিখরে আরোহণ করেছিল। পুরনো ড্যাঙ্গোলা, সুদান ও মিশরের দক্ষিণাংশ শাসন করতো এই রাজবংশ। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে এই ১৪ শতাব্দীতে এই সাম্রাজ্যের পতন ঘটে।

সূত্রঃ প্রিয় ডট কম

(805)

Share Button
  

FavoriteLoadingপ্রিয় যুক্ত করুন

এলার্ম বিভাগঃ বিশ্ব সভ্যতা ও ইতিহাস

এলার্ম ট্যাগ সমূহঃ > > >

Ads by Techalarm tAds

এলার্মেন্ট করুন

You must be Logged in to post comment.

© টেকএলার্মবিডি।সবচেয়ে বড় বাংলা টিউটোরিয়াল এবং ব্লগ | সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত

জেগে উঠো প্রযুক্তি ডাকছে হাতছানি দিয়ে!!!


Facebook Icon